প্রচ্ছদ

সরস্বতীর বাহন রাজহাঁস কেন এবং পূজিত ?

20 January 2018, 19:38

নিজস্ব প্রতিবেদক
This post has been seen 69 times.

দেবী সরস্বতী হলেন বিদ্যার প্রতীক । আর দেবী মূর্তি বা ছবিতে তাঁর সঙ্গে বাহন হিসেবে দেখা যায় রাজহাঁসকে । ফলে মা সরস্বতীর সঙ্গে ভক্তের দলের কাছে পূজিত হয়ে থাকে ওই বাহনরূপী রাজহংস ৷ এটা ঘটনা বাস্তবে একটা রাজহাঁসের যা দৈহিক গঠন তাতে কোনও একজন মানুষের ভার বহন করা সম্ভব নয় ৷ ফলে স্বাভাবিক ভাবে প্রশ্ন ওঠে রাজহাঁসইকেই কেন সরস্বতীর বাহন রূপে দেখা যায় ?

আসলে হাঁস এমন একটি প্রাণী যা জলে এবং স্থলে দু’জায়গায় চলাচল করতে পারে, আবার উড়তেও সক্ষম হওয়ায় অন্তরীক্ষেও বিরাজমান ৷ অর্থাৎ জ্ঞানের ভাণ্ডার যেমন ছড়িয়ে রয়েছে সর্বত্রই তেমনই রাজহংসও সর্বত্র থাকতে সক্ষম ৷

তাছাড়া হাঁস কাঁদায় মিশে থাকা স্থান থেকেও তার খাদ্য খুঁজে নিতে সক্ষম বলে দেখা যায় । শুধু তাই নয় প্রবাদ আছে হংস খুবই বুদ্ধিমান ফলে জল ও দুধের পার্থক্য করতে সক্ষম এই প্রাণীটি । জল ও দুধ মিশিয়ে দিলেও হাঁস শুধু সারবস্তু দুধটুকুই গ্রহণ করে এবং বাকী জলটুকু পাত্রে পড়ে থাকে ।  জ্ঞান সাধনার ক্ষেত্রেও হংসের এ স্বভাব তাৎপর্য বহন করে । হাঁস অসারকে ফেলে শুধুমাত্র সারবস্তুই গ্রহণ করে ।

সংসারে নিত্য ও অনিত্য দুটি বস্তুই বিদ্যমান । বিবেক বিচার দ্বারা নিত্য বস্তুর বিদ্যমানতা স্বীকার করে তা গ্রহণ করা শ্রেয়, অসার বা অনিত্য বস্তু সর্বতোভাবে পরিত্যাজ্য ।  হাঁস বেশির ভাগ সময়ই জলে বিচরণ করলেও দেখা যায় তার দেহে জল লাগে না । তাছাড়া মহাবিদ্যা প্রতিটি জীবের মধ্যে থেকেও জীবদেহের কোন কিছুতে তাঁর আসক্তি নেই, তিনি নির্লিপ্তা ।

এই সব কারণেই মা সরস্বতীর সঙ্গে পূজিত হয়ে শিক্ষা দিচ্ছে-সবাই যেন সমস্ত অসার বা ভেজাল অথবা অকল্যাণকর পরিহার করে সারবাস্তু, ভালো কিছু অর্থাৎ নিত্যপরমাত্মাকে গ্রহণ করেন এবং পারমার্থিক জ্ঞান অর্জন করে সুন্দর পথে চলতে পারি । এমন যে প্রাণীর বৈশিষ্ট্য সেই রাজহাঁসই পারে দেবী সরস্বতী অথবা বিদ্যাকে বহন করতে ৷

সুত্র: ভারতীয় অনলাইন সংবাদ মাধ্যম।

Share

Comments

comments

Shares