প্রচ্ছদ

বন্ধুত্বের কোন সীমা রেখা নেই মানসিকতায় মিলেগেলে: চন্দ্রশিলা ছন্দা

21 January 2018, 19:51

নিজস্ব প্রতিবেদক
This post has been seen 173 times.

চন্দ্রশিলা ছন্দা‘র ফেসবুক থেকেঃ  আখতার বানু জলী। আমার সাথে পরিচয় ২০০৩-৪ এ সম্ভবত। রংপুরে। তখন আমার ছেলের সাথে উনার ছেলে পড়তো। সেই থেকে বন্ধুত্ব। বন্ধুত্বের কোন সীমা রেখা তখনই থাকে না যখন মানসিকতায় মিলে যায়। জলীভাবি অত্যন্ত মিষ্টভাষী। বিনয়ী। আর হেল্পফুল। কোন কাজে চট করে কখনো না বলতে শুনিনি। অত্যন্ত পরিশ্রমী এবং মেধাবী। আমাদের আগেই ভাবিরা ঢাকায় আসেন। যে কারণে আমাদের ছেলেদের মধ্যে একটা দূরত্ব এসেগেলেও আমাদের মাঝে কখনোই কোন দেয়াল সৃষ্টি হয়নি। ফেসবুকের আগে যোগাযোগ হত মোবাইলে। ঢাকা এসে দেখাও হয়েছে মাঝে মাঝে। কখনো বাসায়, কখনো বইমেলায়। 

ভাবি লেখালেখি করতেন এইটা হালকা পাতলা জানতাম। ফেসবুকের কল্যাণে তাঁর প্রষ্ফুটিত প্রতিভার ব্যাপকতা টের পাই। আমি তাঁকে উৎসাহিত করারই চেষ্টা করেছি। একসময় ভাবি নিজেই বই প্রকাশের আগ্রহ দেখালেন। আমি তাঁর পান্ডুলিপি পুরোটা পড়লাম। পড়ে ভেতরে ভেতরে খুব অবাকই হয়েছি। এতো সহজ সাবলীল লিখা…! কখনো কখনো মনে হয়েছে, উনি তো আমারই মুখের কথা কেড়ে নিয়ে আমারই গল্প লিখেছেন…!! প্রতিটি গল্পই জীবনধর্মী।

চন্দ্রশিলা প্রকাশন থেকে একুশে বইমেলায় আখতার বানু জলীর প্রথম গল্প সঙ্কলন *বৈরী প্রত্যাশা * আসছে। আমি একজন প্রতিভাময়ী নারীর বই প্রকাশের মাধ্যম হতে পেরে সত্যিই ভীষণ আনন্দিত। আশাকরি সকলের সহযোগিতায় “বৈরী প্রত্যাশা” ব্যাপক পাঠক প্রিয়তা পাবে।

Share

Comments

comments

Shares