100 GB Free Backup
This post has been seen 62 times.

পৃথিবীর প্রথাগত নিয়মে অনেক মানুষ জন্মে আর মরে। মানুষ মাত্রই মরণশীল। কিন্তু কিছু কিছু মানুষ মরেও তার কর্ম ও কীর্তিতে অমর হয়ে রয়। মানুষ মরে গেলেও তার কর্ম ও কীর্তি তাকে বাঁচিয়ে রাখে। হাজারও-লাখো মানুষ এরকম বাঁচে না, বাঁচে মাত্র ক’জন। ইতিহাসের পথ ধরেই যুগ যুগ বছরের পর বছর কালজয়ী কীর্তিমান মানুষেরাই বেঁচে থাকেন। এরকম একজন ইতিহাস-কালজয়ী রাজনীতির মহাপুরুষ সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। বাংলাদেশের প্রতিটি আন্দোলন, সংগ্রাম এবং স্বাধীনতা সংগ্রাম ও সংবিধান প্রণয়ণের ইতিহাসে সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত একজন কালজয়ী ব্যক্তিত্ব। সংসদের কবি রাজনীতির রবি সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বাংলাদেশের রাজনীতির স্বর্নোজ্জ্বল ইতিহাসের একজন সাহসী বরপুত্র। চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আয়োজিত সদ্য প্রয়াত সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের শোক সভায় প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা এম ইসহাক মিঞা উপরোক্ত মন্তব্য করেন।

ডিজিটাল বাংলাদেশ পাবলিসিটি কাউন্সিল এর উদ্যোগে সদ্য প্রয়াত বাংলাদেশ সংবিধান প্রণেতার সদস্য, বিশিষ্ট পার্লামেন্টারিয়ান, সাবেক মন্ত্রী বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও বর্তমান জাতীয় সংসদের সংসদ সদস্য সংসদের কবি-রাজনীতির রবি সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের শোক সভা আজ ১৮ ফেব্রুয়ারী বিকাল ৫টায় নগরীর চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সুলতান আহমদ চৌধুরী মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ম-লীর সদস্য, প্রবীণ রাজনীতিবিদ আলহাজ্ব মোঃ ইসহাক মিঞা। বিশেষ অতিথি ছিলেন, বিএমএ কেন্দ্রিয় কমিটির সহ-সভাপতি ও বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির ব্যবস্থাপনা বোর্ডের সদস্য ডা. শেখ শফিউল আজম, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, আদিবাসী বৌদ্ধ ইউনিয়নের আহ্বায়ক ও সিটিজি পোস্ট ডটকমের উপদেষ্টা ম-লীর সদস্য প্রকৌশলী পুলক কান্তি বড়–য়া, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য কামরুল হাসান বুলু, টেরিবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি খাইরুল ইসলাম কক্সি, চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নমিতা আইচ, সহ-সভাপতি হাসিনা জাফর, সাধারণ সম্পাদক রেখা আলম চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক মর্জিনা আক্তার লুসি, বঙ্গবন্ধু সমাজকল্যাণ পরিষদ চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার সাধারণ সম্পাদক ¯েœহজয় চৌধুরী টিটু, আওয়ামী লীগ নেতা কাজল চৌধুরী, প্রবীণ রাজনীতিবিদ স্বপন সেন। সভায় প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে এম ইসহাক মিঞা বলেন- বাংলাদেশ যতদিন থাকবে ততদিন সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বেঁচে থাকবে। ইতিহাসের পাতা থেকে কখনো সুরঞ্জিত সেনগুপ্তকে মুছে ফেলা যাবে না। ইসহাক আরো বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে নিবেদিত একজন সৎ, সাহসী ও যোগ্য নেতার প্রতীক ছিলেন সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। তাঁর মৃত্যুতে জাতি একজন সাহসী নেতাকে হারাল। সভায় বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের সাহসী পদচারণা রয়েছে। দেশের সংবিধান প্রণয়নেও রয়েছে তাঁর গৌরবময় অবদান। বাঙালি জাতির গৌরবময় রাজনৈতিক ইতিহাসে আজীবন বেঁচে থাকবেন সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা স.ম. জিয়াউর রহমানের সঞ্চালনায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, অনুষ্ঠান উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক এড. রূপন কান্তি দাশগুপ্ত, সদস্য সচিব সৈয়দ মোঃ মিজবাহ উদ্দিন, সমন্বয়কারী সুভাষ চৌধুরী টাংকু, সংগঠনের কর্মকর্তা মোঃ জামাল উদ্দিন, অধ্যাপক সুমন দত্ত, শেখ আব্দুল্লাহ শেখাব, মাওলানা মাহবুবুর রহমান, সুমন চৌধুরী, আতিকুর রহমান আতিক, মোঃ সেলিম উদ্দিন প্রমুখ।

http://jugapath.com/wp-content/uploads/2017/02/M.-Ishakh-Mia-Photos-18-2-17.jpghttp://jugapath.com/wp-content/uploads/2017/02/M.-Ishakh-Mia-Photos-18-2-17-150x150.jpgjugapathএক্সক্লুসিভরাজনীতিসিলেটপৃথিবীর প্রথাগত নিয়মে অনেক মানুষ জন্মে আর মরে। মানুষ মাত্রই মরণশীল। কিন্তু কিছু কিছু মানুষ মরেও তার কর্ম ও কীর্তিতে অমর হয়ে রয়। মানুষ মরে গেলেও তার কর্ম ও কীর্তি তাকে বাঁচিয়ে রাখে। হাজারও-লাখো মানুষ এরকম বাঁচে না, বাঁচে মাত্র ক’জন। ইতিহাসের পথ ধরেই যুগ যুগ বছরের পর বছর...

Comments

comments