প্রচ্ছদ


মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জঙ্গিনেতা গ্রেফতার

31 December 2017, 03:51

নিজস্ব প্রতিবেদক
This post has been seen 323 times.

বাংলাদেশে সিরিজ বোমা হামলার ঘটনায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ও ভারতের বর্ধমানের খাগড়াগড়ে একটি বাড়িতে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় ‘মোস্ট ওয়ান্টেড’ জঙ্গি আবু সাঈদ ওরফে তালহা শেখ ওরফে শ্যামল শেখকে (৩৩) অস্ত্রসহ গ্রেফতার করেছে পুলিশ।২৯ ডিসেম্বর শুক্রবার দিবাগত রাত ১টার দিকে বগুড়ার নন্দীগ্রাম থানার অমরপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। শনিবার দুপুরে বগুড়ার পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামান তার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
তিনি বলেন, ২০০৫ সালে নওগাঁ জেলার জেএমবি প্রধান হিসাবে দায়িত্ব পাওয়ার পর সারা দেশে বোমা হামলার ঘটনার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন আবু সাঈদ। দুই বছর পর ভারতে পালিয়ে গিয়ে ২০০৯ সালে মুর্শিদাবাদের জেএমবি সদস্য ইয়াদুলের মেয়ে খাদিজাকে বিয়ে করে সেখানে জঙ্গি তৎপরতা শুরু করে।
জানা গেছে, ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বর্ধমানের খাগড়াগড়ে একটি বাড়িতে ২০১৪ সালের ২ অক্টোবর এক বড় আকারের ঘরে-তৈরি বোমার বিস্ফোরণ ঘটে। তাতে মৃত্যু হয় শাকিল গাজি এবং করিম শেখ নামে দুই ব্যক্তির। এ ঘটনার পর পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে বিভিন্ন মাদ্রাসার আড়ালে জঙ্গি তৎপরতা চলার অভিযোগ ওঠে।
পুলিশ জানায়, গ্রেফতারকৃত আবু সাঈদ খাগড়াগড় বিস্ফোরণের মামলার তিন নম্বর আসামি। তার বাড়ি কুষ্টিয়ার কুমারখালী থানার চাঁদপুরে।
গ্রেফতারের সময় তার কাছ থেকে একটি বিদেশি নাইন এমএম পিস্তল, ম্যাগাজিন, গুলি, বার্মিজ চাকু ও নম্বরবিহীন মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।
পুলিশ সুপার বলেন, ২০০৭ সালে বোমা হামলা মামলায় মৃত্যুদণ্ড পাওয়ার পর ভারতে ভারতে পালিয়ে যায় আবু সাঈদ। পরে সেখানে জেএমবির সাংগঠনিক দায়িত্ব পালন করেন ও ২০১৪ সালে খাগড়াগড় বোমা বিস্ফোরণে অংশ নেন। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে ভারতের পুলিশ আদালতে অভিযোগপত্র দিলে ২০১৫ সালে তিনি আবারও দেশে এসে নব্য জেএমবির দক্ষিণাঞ্চলের প্রধান হিসেবে কর্মকাণ্ড চালান।
আবু সাঈদকে রিমান্ডে নিয়ে জ্ঞিাসাবাদ করা হবে বলেও জানান তিনি।
প্রসঙ্গত, কলকাতার এনআইএ (ন্যাশনাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি) তাকে ধরিয়ে দেওয়ার জন্য ১০ লাখ রুপি পুরস্কার ঘোষণা করেছে।

সৌজন্যে : প্রিয়।


Shares