প্রচ্ছদ


মৌলভীবাজারের ২ জনের ফাঁসি : আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল

10 January 2018, 15:03

নিজস্ব প্রতিবেদক
Share
This post has been seen 161 times.

১০ জানুয়ারী বুধবার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের বিচারপতি শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বাধীন ৩ বিচারপতির বেঞ্চে রায় ঘোষণা করেন। বুধবার সকাল সাড়ে দশটায় ২০২ পৃষ্ঠার এই রায় পড়া শুরু করেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের ৩ বিচারপতির বেঞ্চ। মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় মৌলভীবাজারের পাঁচ আসামির মধ্যে ওজায়ের আহমেদ চৌধুরী ও নেসার আলীকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। এ মামলার অপর তিন আসামি সামছুল হোসেন তরফদার ওরফে আশরাফ, ইউনুছ আহমেদ এবং মোবারক মিয়াকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। ২০১০ সালে ট্রাইব্যুনাল গঠনের মধ্য দিয়ে একাত্তরের যুদ্ধাপরাধের বিচার শুরুর পর এটি ৩০তম রায়।

গত বছরের ২০ নভেম্বর ট্রাইব্যুনাল মামলাটির রায়ের জন্য অপেক্ষমান (সিএভি) রাখে। ২০১৭ সালের ৮ ডিসেম্বর মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার শামসুল হোসেন তরফদারসহ পাঁচ রাজাকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের মধ্যে দিয়ে বিচার প্রক্রিয়া শুরু হয়। এ মামলার পাঁচজনের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় হত্যা, গণহত্যা, আটক, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের পাঁচটি অভিযোগ আনা হয়েছে। এদের মধ্যে ইউনুছ আহমেদ ও ওজায়ের আহমেদ চৌধুরী কারাগারে আছেন, বাকিরা পলাতক রয়েছেন।

২০১৬ সালের ১৩ অক্টোবর ট্রাইব্যুনাল আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে। ওইদিন বিকেলে রাজনগর উপজেলার গয়াসপুর গ্রামের ওজায়ের আহমেদ চৌধুরীকে (৬০) মৌলভীবাজার শহরের চৌমোহনা থেকে ও ইউনুছ আহমদকে (৭০) সোনাটিকি গ্রামের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

২০১৪ সালের ১২ অক্টোবর এই পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে তদন্ত শুরুর পর ২০১৬ সালের ২৬ মে ট্রাইব্যুনালে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করে প্রসিকিউশন। অভিযোগ গঠনের পর ২০১৭ সালের ১৫ জানুয়ারি সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, আসামিদের মধ্যে সামছুল হোসেন তরফদার একাত্তরে আল-বদর বাহিনীর এবং নেছার আলী রাজাকার বাহিনীর স্থানীয় কমান্ডার ছিলেন। বাকি তিনজন রাজাকার বাহিনীর সদস্য হিসেবে বিভিন্ন যুদ্ধাপরাধে লিপ্ত হন।

Share


Shares