প্রচ্ছদ


ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী মোদির উপস্থিতির আশা

19 April 2018, 13:22

নিজস্ব প্রতিবেদক
ফাইল ছবি
This post has been seen 252 times.

আগামী মে মাসে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ সফরে যাচ্ছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পশ্চিমবঙ্গে অবস্থিত বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে নির্মাণাধীন বাংলাদেশ ভবনের উদ্বোধন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন উপলক্ষে তার এক দিনের এই ভারত সফর। ওই অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উপস্থিতি কামনা করেছে বাংলাদেশ। ফলে ভারত-বাংলাদেশের দুই প্রধানমন্ত্রীর যৌথ উপস্থিতির সম্ভাবনাও রয়েছে। বাংলাদেশ সরকারের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বাংলাদেশ চায়, ভারত ও বাংলাদেশের দুই প্রধানমন্ত্রী যৌথভাবে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে নির্মাণাধীন বাংলাদেশ ভবনটির উদ্বোধন করা হোক।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ সরকারের অর্থে নির্মাণাধীন ওই বাংলাদেশ ভবনটি মূলত একটি কালচারাল কমপ্লেক্স, যেখানে একটি পাঠাগার এবং বাংলাদেশের সঙ্গে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সম্পর্ক, মুক্তিযুদ্ধ ও ভারত-বাংলাদেশের সম্পর্ক যুক্ত বিভিন্ন স্মৃতি, প্রমাণাদি-দলিল সংক্রান্ত একটি জাদুঘর স্থান পাবে। ভবন নির্মাণের কাজ প্রায় ৯০ ভাগ ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। বাংলাদেশ ভবনের সব দায়িত্ব বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষের ওপর ন্যস্ত থাকবে। ভবন নির্মাণের কার্যক্রম পর্যালোচনা ও প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর চূড়ান্ত করার জন্য বাংলাদেশের সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরের নেতৃত্বে বাংলাদেশের ১৭ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বর্তমানে সে দেশে অবস্থান করছে। প্রতিনিধিদলটি গত ১৭ এপ্রিল কলকাতা গিয়েছে।

ভারতের ইংরেজি দৈনিক দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া বর্তমানে ভারতে অবস্থানরত বাংলাদেশের সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরকে উদ্বৃত করে জানায়, বাংলাদেশের প্রত্যাশা আগামী মে মাসের শেষের দিকে বাংলাদেশ ভবনের উদ্বোধন করা হোক এবং বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন উপলক্ষে নির্মাণাধীন নতুন এই ভবন পরিদর্শনে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আসবেন। আর এর মাধ্যমে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী একত্রিত হয়ে যৌথভাবে ভবনটির উদ্বোধন করবেন।

পত্রিকাটি জানায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পশ্চিমবঙ্গ সফর এবং ভবনের উদ্বোধন সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে গতকাল বুধবার বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে একটি বৈঠকও হয়েছে। বৈঠকের পর আসাদুজ্জামান নূর সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী যদি এই ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকেন তাহলে বিষয়টি মহান একটি দৃষ্টান্তমূলক ঘটনায় পরিণত হবে।

এ ব্যাপারে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য সবুজ কলি সেন সাংবাদিকদের বলেন, বাংলাদেশ ও ভারতের জনগণের মধ্যে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর একটি বন্ধন। যদি দুদেশের প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে যৌথভাবে বাংলাদেশ ভবনের উদ্বোধন করা হয়, তা হলে নিঃসন্দেহে বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য একটি মহান উৎসবে পরিণত হবে বলে তিনিও উল্লেখ করেন। তবে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে এ ব্যাপারে এখনো কোনো নিশ্চয়তা পাওয়া যায়নি বলে জানান বিশ্বভারতীর ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য।

ভারতের অপর ইংরেজি দৈনিক আউটলুক জানায়, বাংলাদেশের সংস্কৃতিমন্ত্রীর নেতৃত্বে ১৭ সদস্যের প্রতিনিধিদলটি গত মঙ্গলবার বাংলাদেশ ভবনের উদ্বোধন উপলক্ষে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের বিষয়টি চূড়ান্ত করেন।

এদিকে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারাও জানিয়েছেন, বিশ্বভারতীর সমাবর্তন অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি উপস্থিত থাকবেন এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ দুদেশের প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে যৌথভাবে বিশ্বভারতী বাংলাদেশ ভবনের উদ্বোধন করা হবে। তবে প্রধানমন্ত্রী ভারত সফর তথা ভবন উদ্বোধনের তারিখ নির্ধারণ করা হয়নি উল্লেখ করে সূত্র জানায়, আগামী মে মাসের শেষ দিকে অনুষ্ঠানটি হতে যাচ্ছে।

সৌজন্যে: ভোরের কাগজ।


Shares