প্রচ্ছদ


গীতাকে বাঁচাতে চিকিত্সার্থে সমাজের বিত্তবানদের কাছে আর্থিক সাহায্যের আবেদন

28 April 2018, 15:52

নিজস্ব প্রতিবেদক
This post has been seen 2192 times.

“মানুষ মানুষের জন্য,জীবন জীবনের জন্য,একটু সহানুভুতি কি মানুষ পেতে পারে না?”

আসুন গীতার পাশে দাঁড়িয়ে
৩টি শিশুর মুখে হাসি ফুটাই

গীতা দত্ত, বয়স ৩৫ ।  মিডওয়াইফ হিসেবে সামান্য বেতনে বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাকে চাকুরি করতেন ।  স্বামী অলক দাস সিলেটে একটি কুরিয়ার সার্ভিসের কর্মচারী ।  তিন সন্তানের মধ্যে বড়টির বয়স ৭ বছর । ছোট দুইটি যমজ, একটি মেয়ে এবং একটি ছেলে। সিলেট নগরীর গোপালটিলায় ভাড়া বাসায় থেকে স্বামী স্ত্রী মিলে কোনোভাবে সংসার চালিয়ে নিচ্ছিলেন । বড় ছেলেকে স্কুলেও পাঠিয়েছিলেন । কিন্তু, এক বছর আগে হঠাৎ দূর্যোগ আসে তাদের জীবনে। গীতার শরীর খারাপ হলে তাকে ওসমানী হাসপাতালে নেওয়ার পর তার ক্যান্সার ধরা পড়ে । সিলেটের চিকিৎসকরা পরামর্শ দেন তাকে ভারতে নিয়ে উন্নত চিকিৎসা দিতে হবে। এটা শুনে স্বামী অলকের মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ে । সন্তানদের মুখের দিকে তাকিয়ে সহায় সম্বল সব বিক্রি করে স্বজনের কাছে হাত পেতে স্ত্রীকে নিয়ে যান ভারতের সিএমসি, বেলুর (চেন্নাই)। সেখানে প্রায় দেড়মাস চিকিৎসা নেয়ার পর ডাক্তাররা তাদের ছেড়ে দেন।

ভারতের ডাক্তাররা বলে দেন, গীতাকে বাঁচাতে হলে দেশে ১০টি থোরাপী ও ১০টি ক্যামো, আরো অন্যান্য থেরাপী দিয়ে আবার আমাদের এখানে নিয়ে আসতে হবে । ১০টি থেরাপীতে ৭০ হাজার টাকা ও প্রতিটি ক্যামোতে ২৫ হাজার টাকা খরচ হবে । এর মধ্যে স্ত্রীর চিকিৎসায় প্রায় ৮ লাখ টাকা ব্যয় করে অলক নিঃস্ব । এমন কোনো আত্মীয় স্বজনও নেই যারা আবার তাকে সাহায্য করবেন । নিরুপায় অলক, দেশে আসার পর স্ত্রীর আর কোনো চিকিৎসা করাতে পারছেন না ।

এদিকে দিন যত যাচ্ছে গীতার শরীর তত খারাপের দিকে যাচ্ছে । অবুঝ তিনটি শিশু মার বিছানার পাশে বসে চোখের পানি ঝরাচ্ছে । তাদের মার চিকিৎসার জন্য ১০টি থেরাপীতে ৭০ হাজার টাকা ও এককটি ক্যামোতে ২৫ হাজার টাকা করে প্রয়োজন । এর মধ্যে নিঃস্ব অলকের একটি থেরাপী করানোরও সামর্থ নেই । তাই তিনি দেশের হৃদয়বান মানুষের দ্বারস্থ হয়েছেন।

হৃদয়বানরাই পারেন ফুট ফুটে তিনটি শিশুর চোখের অশ্রু মুছাতে, তাদের মুখে হাসি ফুটাতে । আসুন প্রত্যেকের অবস্থান থেকে আমরা গীতার চিকিৎসার জন্য দরিদ্র এই পরিবারের পাশে দাঁড়াই । সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা: অলক দাস,  ডাচ বাংলা ব্যাংক, বারুত খানা শাখা, সিলেট ১২১১০১৩০৯৮২০।  অথবা, অলক দাস আই.এফ.আই.সি ব্যাংক, লালদীঘিরপার শাখা, সিলেট ৩০৩৩৭৮৪৩৭৫০৩১। মোবাইল: ০১৭৪৯-৫৮০১৬০ (পার্সনাল বিকাশ নাম্বার)।


Shares