প্রচ্ছদ


শিল্পকলা সম্মাননা ২০১৮ পাচ্ছেন সৌমিত্র দেব

06 April 2019, 14:40

নিজস্ব প্রতিবেদক
This post has been seen 397 times.

চলচ্চিত্রে অবদান রাখার জন্য শিল্পকলা সম্মাননা ২০১৮ পাচ্ছেন সৌমিত্র দেব । এই উপলক্ষে ৬ এপ্রিল সন্ধ্যায় মৌলভীবাজার সরকারি উচ্চবিদ্যালয় মিলনায়তনে অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে জেলা শিল্পকলা একাডেমি ।সেখানে প্রধান অতিথি থাকবেন ভূমি মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় কমিটির সদস্য নেছার আহমদ এমপি । সভাপতি জেলা প্রশাসক মোঃ তোফায়েল ইসলাম ।

সৌমিত্র দেবের জন্ম ২৭ জুলাই ১৯৭০ মৌলভীবাজার শহরে ।পিতামহ প্রমোদ চন্দ্র দেব ছিলেন স্বনামধন্য আইনজীবী ও রাজনীতিবিদ । বাবা সুশীতল দেব ছিলেন সরকারি চাকরিজীবী । মা মায়া দেব ছিলেন গৃহিণী ।তিনি চার বোনের একমাত্র ভাই ।শর্বরী ,শর্মিলা ,শর্মিষ্ঠা ও সুতপা । বোনেরা সবাই উচ্চশিক্ষিত ।
সৌমিত্র দেব মৌলভীবাজার সরকারি উচ্চবিদ্যালয় থেকে এস এস সি,মৌলভীবাজার সরকারি মহাবিদ্যালয় থেকে এইচ এস সি এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন । একই
বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলাদেশ প্রেস ইন্সটিটিউটের অধীনে করেছেন সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর ডিপ্লোমা ।এ ছাড়া তিনি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পরিকল্পনা, প্রশাসন ও ব্যাবস্থাপনায় গ্র্যাজুয়েট ট্রেনিং নিয়েছেন । বাংলা একাডেমির তরুণ লেখক প্রকল্পে চতুর্থ ব্যাচে তিনি প্রশিক্ষণ নিয়েছেন ।
অভিনয় ও আবৃত্তি তার নেশা ।সৌমিত্র দেব অভিনয় শুরু করেন মৌলভীবাজারে জীবন চক্র থিয়েটারের মাধ্যমে । চলচ্চিত্রে আত্মপ্রকাশ করেন একটি বিদেশী টেলিফিল্ম দিয়ে । এডাম ডাউলা পরিচালিত হিডেন শ্যাডোস এর মাধ্যমে । তার অভিনীত প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নেকাব্বরের মহাপ্রয়াণ । মাসুদ পথিক পরিচালিত এ ছবি জাতীয় পুরষ্কার পেয়েছে । সম্প্রতি শিল্পকলা একাডেমীর অর্থায়নে নির্মিত লুসি তৃপ্তি গোমেজ পরিচালিত স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ডাকঘর এও তার অভিনয় সবার নজর কেড়েছে । তিনি বাংলাদেশের চলচ্চিত্র নিয়ে গবেষণা করছেন ।
বাংলাদেশ প্রেস ইন্সটিটিউট,এশিয়াটিক সোসাইটি ও বাংলা একাডেমির বিভিন্ন গবেষনা কর্মে তিনি কাজ করেছেন । বাংলা একাডেমি থেকে প্রকাশিত বাংলাদেশের লোকজ সংস্কৃতি গ্রন্থে তিনি একজন লেখক ।

৪১ টি প্রকাশিত গ্রন্থের লেখক সৌমিত্র দেব পৃথিবীর বহু দেশে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন । ২০০৫ সালে তিনি ১০ম উত্তর আমেরিকান বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্মেলনে অংশ নেন । ২০১১ সালে ভারতের শিলচর শহরে সেখানকার ভাষা আন্দোলনের ৫০ বছর অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেন । এ ছাড়া চীন,মালেশিয়া , নেপাল ও ভারতে আরো বেশ কিছু অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে উজ্জ্বল করেছেন দেশের ভাবমূর্তি ।

সাহিত্যের প্রায় সকল শাখায় বিচরণ করলেও লোক সাহিত্যে তার বিশেষ অবদান আছে ।তার উদ্যোগে ঢাকায় ২০০৯ সালে অনুষ্ঠিত হয় প্রথম জাতীয় হাছন উৎসব । লোক সাহিত্যে তার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বই – মরমী কবি হাছন রাজা ও তার জীবন দর্শন ।তার অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ বইয়ের মধ্যে আছে ডিজিটাল বাংলাদেশ ও বিকল্প গণমাধ্যম,অজবীথি ,বন পরযটক, নীল কৃষ্ণচূড়া , পূর্ব থেকে পশ্চিমে ,জলে স্থলে অন্তরীক্ষে, হিমালয় কন্যার হাসি,তুমুল তুষার বৃষ্টি , আগুন পিপাসা, পাথরের চোখ প্রভৃতি ।

সৌমিত্র দেব তার পেশা হিসেবে সাংবাদিকতা ,অভিনয় ও লেখালেখিকেই বেছে নিয়েছেন । কাজ করেছেন জাতীয় দৈনিক প্রথমআলো ও মানবজমিনে । বর্তমানে তিনি অনলাইন গণমাধ্যম রেডটাইমস ডট কম ডট বিডির প্রধান সম্পাদক । ব্যক্তিজীবনে তিনি বিবাহিত । তার স্ত্রী পলা দেব রাইজিং সান স্কুলের একজন শিক্ষক । একমাত্র পুত্র সৌভাগ্য দেব ।


Shares